সকাল ৮:২৩, ১৪ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

শক্তিশালী ঢাকাকে হারিয়ে দিল দূর্বল রাজশাহী

স্পোর্টস ডেস্ক : শেষ ওভারে ঢাকার দরকার ছিল ৯ রান। ১৯ তম ওভারে ২১ রান নিয়ে ঢাকার মনোবল ছিল তুঙ্গে। কিন্তু চরম নাটকিয়তায় শেষ ওভারে রাজশাহীর স্পিন আক্রমনে ঢাকার মুক্তার আলী বোকা বনে যান। কোন ভাবেই বল ঠিকমত ব্যাটে সংযোগ ঘটাতে পারছিলেন না।

৫ উইকেটে ১৬৭ রানেই থেমে যায় ঢাকা। বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে আসরের প্রথম ম্যাচে মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহী ২ রানে জয়ের সাথে পূর্ন ২ পয়েন্ট সংগ্রহ করে। ঢাকার পক্ষে অধিনায়ক মুশফিক ও আকবর আলী ৫০ রানে জুটি গড়েও দলকে জয় উপহার দিতে ব্যর্থ হন। ঢাকার পক্ষে মুশফিক ৪১ ও আকবর আলী ৩৪ রান সংগ্রহ করেন। রাজশাহীর মুকিদুল ইসলাম ছাড়া সবাই একটি করে উইকেট তুলতে সক্ষম হয়।

এর আগে বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে আসরের প্রথম ম্যাচে বেক্সিমকো ঢাকার বিপক্ষে ১৬৯ রান বড় রান সংগ্রহ করে মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহী। মেহেদী-সোহানের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে এমন রান তুলে রাজশাহী।

মিরপুরের শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে রাজশাহীর হয়ে ইনিংসের গোড়াপত্তন করতে আসেন অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত ও তরুণ আনিসুল ইমন। তবে ২ ছক্কা হাঁকিয়ে ১৬ বলে ১৭ রান করেন শান্ত। শান্তর বিদায়ের পর ফিরেন রনি তালুকদার (৮ বলে ৬), মোহাম্মদ আশরাফুল (৯ বলে ৫) ও ফজলে মাহমুদ রাব্বি (০)।

সেই সাথে ওপেন করতে নামা আনিসুল খেলেন ২৩ বলে ৩৫ রান (৫টি চার ও ১টি ছক্কা)। এরপর দলের বিপর্যয় সামলানোর দায়িত্ব নেন নুরুল হাসান সোহান ও মেহেদী হাসান। ষষ্ঠ উইকেটে দু’জনে গড়েন ৮৯ রানের পার্টনারশিপ। সোহান বিদায়ের আগে ২০ বলের মোকাবেলায় ৩৯ রান করেন ২টি চার ও ৩টি ছক্কায়।

সোহানের বিদায়ের পর সাজঘরে ফেরেন মেহেদীও। তবে তার আগে অর্ধশতক পূর্ণ করে ফেলেন। ৩২ বলের মোকাবেলায় ৫০ রান করা মেহেদী হাঁকান ৩টি চার ও ৪টি ছক্কা। শেষপর্যন্ত নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ৯ উইকেট হারিয়ে রাজশাহীর সংগ্রহ দাঁড়ায় ১৬৯ রান। ঢাকার হয়ে ৩টি করে উইকেট নেন মুক্তার ও রানা।
ম্যাচ সেরা : মেহেদী হাসান

 

======