সকাল ১১:২১, ২৫শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

দেশে সঙ্গতিপূর্ণ ও কমমূল্যে যে ভ্যাকসিনটা পাবো সেটাই আনবো: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

এইচ এম জসিম আহমেদ : রোববার (১৮ অক্টোবর) দুপুরে রাজধানীর একটি হোটেলে সোসাইটি অব সার্জন বাংলাদেশ আয়োজিত ‘কোভিড-১৯ দুর্যোগে সার্জনদের ভূমিকা’ শীর্ষক সেমিনারে জাহিদ মালেক বলেন, করোনার এই সময়ে ভ্যাকসিনের প্রয়োজন আছে।
আমরা আশা করি এফেকটিভ ভ্যাকসিন তৈরি হোক। এখনও কোনো ভ্যাকসিন ফাইনাল হয়নি। সবার সাথে যোগাযোগে আছে। দেশের আবহাওয়ার সাথে সঙ্গতিপূর্ণ ও কমমূল্যে যে ভ্যাকসিনটা পাবো সেটাই আনবো। প্রধানমন্ত্রী এ বিষয়ে ওয়াকিবহাল। ভ্যাকসিন সিলেকশন বিভিন্ন চিন্তা করে ফাইনাল করছি।

তিনি বলেন, আমেরিকা ইউরোপের বেহাল অবস্থা হয়েছে, এখনো আছে। কিন্তু বাংলাদেশ সীমিত জনবল, টেকনোলজি নিয়েও সকলের পরিশ্রমে অন্য দেশের চেয়ে অনেক ভালো আছে। আমাদের দেখতে হবে মৃত্যুর হার কেমন। আমাদের ১৮ কোটির মধ্যে ৫ হাজার মারা গেছে। আমেরিকার জনসংখ্যার তুলনায় অনেক বেশি মানুষ মারা গেছে। ইউরোপের চার-পাঁচ কোটি জনসংখ্যার মধ্যে অনেক মানুষ মারা গেছে। এসব তুলনা করলে বুঝতে পারি আমরা কোন অবস্থানে আছি।

মন্ত্রী বলেন, আমাদের করোনা টেস্টের পর্যাপ্ত ব্যবস্থা আছে, কিন্তু মানুষ টেস্ট করতে আসে না। আমি বলব আপনারা আসুন টেস্ট করুন, নিজে এবং পরিবার নিয়ে সাবধানে থাকুন। স্বাস্থ্যসেবা ভালো আছে বলে জনগণের মধ্যে আস্থা এসেছে। স্বাস্থ্যসেবা ভালো না থাকলে কেউ ভয়ে বের হতো না।

জাহিদ মালেক বলেন, সামনে শীতকালীন সময় আসছে। ইউরোপ আমেরিকায় শুরু হয়েছে। বাংলাদেশে এ সময় বিয়ে সাদি বেশি হয়, পিকনিক বেশি হয়। আমরা কক্সবাজারে যাই বেশি। সামনে পূজা আছে, শীতে ওয়াজ মাহফিল হয়, যার কারণে সংক্রমণ বাড়তে পারে। অনুষ্ঠান সীমিত করুন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এবিএম খুরশীদ আলম বলেন, প্রশাসন ডাক্তারের স্থান দখল করছে, এটা করতে দেওয়া আসলে উচিত নয়, এবিষয় আমাদের সচেতন থাকতে হবে।